সামিয়া রহমানের অন্য চাকরির অনুমতিপত্র নেই ঢাবির রেজিস্ট্রার দফতরে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক সামিয়া রহমান একটি বেসরকারি টেলিভিশনের হেড অব কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স পদেও চাকরি করেন। একজন শিক্ষক মূল চাকরির পাশাপাশি খণ্ডকালীন কাজ করতে পারেন। তবে এজন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হয়। কিন্তু সামিয়া রহমানের অন্য চাকরির অনুমতির কোনও কাগজ নেই ঢাবির রেজিস্ট্রার দফতরে। টেলিভিশনের হেড অব কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স পদে চাকরিটিকে তিনি খণ্ডকালীন দাবি করছেন। তবে এমন শীর্ষপদে চাকরি অস্থায়ী হয় না বলেই মনে করেন দেশের বিশিষ্ট সাংবাদিক মনজুরুল আহসান বুলবুল।

ঢাবির রেজিস্ট্রার দফতর সূত্রে জানা যায়, একজন শিক্ষক কেবলমাত্র একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে খণ্ডকালীন কাজের অনুমতি পান। তবে শর্ত হচ্ছে, এক্ষেত্রে অবশ্যই নিজের বিভাগের নিয়মিত কাজকর্মের কোনও বিঘ্ন ঘটাবেন না। এছাড়া, একটি স্থায়ী চাকরির পাশাপাশি অন্য কোনও স্থায়ী পদে চাকরি করার নিয়ম নেই। তবে স্থায়ী চাকরি করতে হলে শর্তসাপেক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেটের অনুমতি নিতে হয়।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক সামিয়া রহমান ও ক্রিমিনোলজি বিভাগের শিক্ষক মাহফুজুল হক মারজানের বিরুদ্ধে একটি নিবন্ধে দার্শনিক মিশেল ফুকোর নিবন্ধের বিভিন্ন অংশ থেকে লেখা কপি করার অভিযোগে তদন্ত কমিটি গঠন করে ঢাবির সিন্ডিকেট। পরে তাদের বিরুদ্ধে মার্কিন দার্শনিক এডওয়ার্ড সাঈদের লেখাও কপি করার অভিযোগ আসে কর্তৃপক্ষের হাতে। এর পর সামিয়া রহমানের একইসঙ্গে দুটি চাকরি করা নিয়েও বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন দেখা দেয়।
একইসঙ্গে দুটি চাকরি করার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি রেজিস্ট্রার গোলাম সরওয়ার ভূইয়া বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘শিক্ষকরা অন্য কোনও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে খণ্ডকালীন কাজের অনুমতি, দেশের বাইরে যাওয়ার জন্য ছুটি, দেশের বাইরে স্কলারশিপ নিয়ে যাওয়ার জন্য ছুটি অথবা স্থায়ী কোনও চাকরি নিয়ে ছুটি চাইলে রেজিস্ট্রার দফতর বরাবর অফার লেটারসহ আবেদন করতে হয়। পরে নিয়ম অনুযায়ী তার ছুটি মঞ্জুর অথবা নামঞ্জুর করা হয়।’

খণ্ডকালীন কাজের অনুমতি কিভাবে মেলে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী একজন শিক্ষক কেবলমাত্র একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়েই কাজের অনুমতি পাবেন। তবে কেউ যদি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করতে চান তাহলে অবশ্যই সিন্ডিকেট সভা থেকে অনুমতির প্রয়োজন হয়।’
তিনি আরও বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরিরত অবস্থায় কোনও শিক্ষক অন্যত্র স্থায়ী পদে চাকরি করতে চাইলে সিন্ডিকেট সভার মাধ্যমে অনুমতি নিয়ে তা করতে পারেন। তবে চাকরি জীবনে সর্বোচ্চ চার বছরের জন্য বিনা বেতনে ছুটি নিয়ে দেশে বা দেশের বাইরে স্থায়ী পদে চাকরি করতে পারেন।’

ঢাবির গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক সামিয়া রহমান বর্তমানে একটি বেসরকারি টেলিভিশনের হেড অব কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স পদে চাকরি করছেন। এর আগেও তিনি আরেকটি টেলিভিশন চ্যানেলের কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স এবং প্রোগ্রাম এডিটর হিসেবে কাজ করেন। কিন্তু তার অন্যত্র চাকরির অনুমতি বিষয়ে কোনও চিঠি রেজিস্ট্রার দফতরে নেই জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টির সহকারী রেজিস্ট্রার মোক্তার হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘তিনি (সামিয়া) আবেদন লিখেছিলেন উপাচার্য বরাবর। তাই তিনি অনুমতির চিঠি রেজিস্ট্রার দফতরে আনলেও সেটি ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। ফলে তার কাজে অনুমতির কোনও চিঠি রেজিস্ট্রার দফতরে নেই। তিনি যদি অন্যত্র কাজের অনুমতি পান তাহলে তৎকালীন উপাচার্যই তা দিয়েছেন। অনুমতি পেয়েছেন কিনা তার কোনও নথি বা এ সংক্রন্ত কোনও চিঠি রেজিস্ট্রার দফতরে নেই।

Facebook Comments