মার্কিন নিষেধাজ্ঞা শক্ত হাতে মোকাবিলা করা হবে:ইরান

আরোপিত মার্কিন নিষেধাজ্ঞা শক্ত হাতে মোকাবিলা করা হবে বলে জানিয়েছেন ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনি। এজন্য সরকারের সব পক্ষকে ঐক্যবদ্ধ হতে আহ্বান জানান খামেনি।

অন্যদিকে দেশের নিরাপত্তা রক্ষা প্রস্তুত থাকতে সেনা সদস্যদের নির্দেশ দিয়েছেন ইরানি সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান। এদিকে মধ্যপ্রাচ্যে হস্তক্ষেপ না করতে ইরানকে আবারো হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বিনইয়ামিন নেতানিয়াহু।

যুক্তরাষ্ট্রের আরোপিত নিষেধাজ্ঞা মোকাবিলায় করণীয় ঠিক করতে জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনি। মার্কিন নিষেধাজ্ঞাকে অবৈধ আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, সবার ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টায় অচিরেই যুক্তরাষ্ট্রকে জবাব দেওয়া হবে।

ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনি বলেন, ‘এমন কোনো সমস্যা নেই যা, আমরা সমাধান করতে পারবো না। তবে এ জন্য জনগণ, সরকার এবং আমলাদের অবশ্যই ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। তাই সবার প্রতি আহ্বান জানাবো শত্রুদের নিষেধাজ্ঞা মোকাবিলায় দায়িত্ব নিয়ে অভ্যন্তরীণ সমস্যা সমাধান করতে। আশা করি এর মাধ্যমেই যুক্তরাষ্ট্র মোক্ষম জবাব পাবে।’

ইরানি সর্বোচ্চ নেতার এমন আহ্বানের পরই দেশটির সামরিক বাহিনীর প্রধান মোহাম্মদ বাকেরি জানান, নিজেদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সব ধরণের পদক্ষেপ গ্রহণে প্রস্তুত ইরানি বাহিনী।

তিনি সতর্ক করে বলেন, প্রতিপক্ষ হামলা চালালে ইরান কখনোই অলস হয়ে বসে থাকবে না। এছাড়াও অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার জন্য হুমকি, বিভিন্ন বিদ্রোহী এবং জঙ্গি গোষ্ঠীকেও সতর্ক করেন মোহাম্মদ বাকেরি।

এদিকে মধ্যপ্রাচ্যর বিভিন্ন দেশে হস্তক্ষেপ বন্ধ করতে ইরানকে আবারো সতর্ক করেছেন ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বিনইয়ামিন নেতানিয়াহু। মার্কিন নৌবাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে, অবিলম্বে সিরিয়া এবং ইয়েমেন থেকে ইরান সেনা প্রত্যাহারে তেহরানের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বিনইয়ামিন নেতানিয়াহু বলেন, ‘ইরানের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে আমরা সব সময়ই উদ্বিগ্ন। তাদের সেনারা ইরান এবং ইয়েমেনে অবস্থান করে ইসরাইলে হামলার পরিকল্পনা করছে।

তাই কোনো অবস্থাতেই তাদের ওই সব দেশে থাকতে দেওয়া হবে না। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও এ বিষয়ে একমত। আমার বিশ্বাস যুক্তরাষ্ট্র এবং ইসরাইলের যৌথ চেষ্টায় ইরানি সেনারা মধ্যপ্রাচ্য থেকে বিতাড়িত হবে।’

নিজেদের মধ্যকার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরো জোরদারের লক্ষ্যে ইসরাইল সফর করছে যুক্তরাষ্ট্রে ষষ্ঠ নৌবহর। তবে বিশ্লেষকদের ধারণা, মধ্যপ্রাচ্যে ইরান এবং তার মিত্রদের সতর্ক করতেই ইসরাইলের বন্দরে নৌবহর পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে এ বিষয়ে ইরানের পক্ষে থেকে এখনো কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

Facebook Comments