কোন নারীর সতীত্ব আছে কি না নির্ধারন করছে সোস্যাল মিডিয়া- তুহিন মালিক

কোন নারীর সতীত্ব আছে কি নাই, চাইলে যে কেউ এটা এখন হরহামেশা নির্ধারণ করে দিচ্ছে! সোস্যাল মিডিয়াতে সিদ্ধান্ত দিয়ে দেয়া হচ্ছে, কার সতীত্ব আছে, আর কার সতীত্ব নাই! গণমাধ্যমও দেখছি এই হুজুকের সুবাদে যত্রতত্র এসব নিউজ প্রচার করছে!

বিশেষ করে একজন কর্মজীবী নারী, কিংবা নারী অধিকারের সাথে সম্পৃক্ত, কিংবা মিডিয়ায় কাজ করা নারীদের চরিত্র নিয়ে এহেন নোংরা প্রচার আমাদের নিকৃষ্ট মন মানসিকতার পরিচয়ই বহন করে! আমরা যেন ধরেই নিয়েছি বাইরে কাজ করা কিংবা মিডিয়াতে কাজ করা নারীর আবার কোন সতীত্ব আছে নাকি!! অনেকে এটা নিয়ে আবার মজাও করে! ট্রলও করে!

কিন্তু আমরা একবারও কি ভেবে দেখেছি, যার সতীত্ব নিয়ে মজা করছি সামাজিক ও পারিবারিকভাবে সেই নারী কতটা অপমানিত বোধ করেন? আমরা কি জানি, আমাদের এহেন কাজের জন্য আল্লাহর নির্দেশিত শাস্তিটা কি?

আল্লাহ রাব্বুল আলামীন বলেন,
“যারা সতী-সাধ্বী, নিরীহ ঈমানদার নারীদের প্রতি অপবাদ আরোপ করে, তারা ইহকালে ও পরকালে ধিকৃত এবং তাদের জন্যে রয়েছে গুরুতর শাস্তি।” [সুরা নুর-২৩]

আর যার চরিত্র নিয়ে মজা করছি, আমরা কি তার ব্যভিচারীতা স্বচক্ষে দেখেছি? কিংবা রোজ হাশরে চাক্ষুষ কোন সাক্ষী উপস্থাপন করতে পারবো?

কারন আল্লাহ রাব্বুল আলামীন বলেন,
“যারা সতী-সাধ্বী নারীর প্রতি অপবাদ আরোপ করে, অতঃপর স্বপক্ষে চার জন পুরুষ সাক্ষী উপস্থিত করে না, তাদেরকে আশিটি বেত্রাঘাত করবে এবং কখনও তাদের সাক্ষ্য কবুল করবে না। এরাই না’ফারমান।” [সুরা নুর-৪]

(লেখক এর ফেসবুক পেজ থেকে সংগ্রহীত)

Facebook Comments